ইসলাম কি প্রগতিশীল নাকি পশ্চাদপর ধর্ম?

ইসলাম কি প্রগতিশীল নাকি পশ্চাদপর ধর্ম?
– আসুন জেনে নেই কিছু জানা অথচ না ভেবে দেখা তথ্য
 
ইসলাম যেসব বিষয় সমর্থন করে নাঃ
১। ইসলাম কোন কুসংস্কার সমর্থন করে না।
২। ইসলাম আত্মহত্যা সমর্থন করে না।
৩। ইসলাম নিজের স্ত্রী কিংবা স্বামী ব্যাতীত অন্য কারো সাথে কোন যৌন সম্পর্ক সমর্থন করে না।
৪। ইসলাম শরীরের জন্য ক্ষতিকর বস্তু যেমন মদ, শুকর, তামাক, বিড়ি, সিগারেট, ইত্যাদি গ্রহণ সমর্থন করে না।
৫। ইসলাম সামাজিক এবং অর্থনৈতিক মন্দ কাজ যেমন জুয়া খেলা, পতিতাবৃত্তি ইত্যাদি সমর্থন করে না।
৬। ইসলাম অর্থনৈতিক জুলুম অর্থাৎ সুদ সমর্থন করে না।
৭। ইসলাম আয়কর প্রয়োগ করে না, বরং সঞ্চয় কর (যাকাত) প্রয়োগ করে, তাও অত্যন্ত স্বল্পমাত্রায়। অ্যায় থেকে ভাগ বসানো জুলুম, বরং অ্যায় থেকে সারাবছর ব্যয় নির্বাহ করার পরে অবশিষ্ট সঞ্চয় যদি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশী হয়ে থাকে তাহলেই শুধুমাত্র সঞ্চয়ের চল্লিশ ভাগের এক ভাগ যাকাত প্রযোজ্য। এবং এই মাত্রা সবার জন্য সমান।
৮। ইসলাম যুদ্ধাবস্থায় নারী, শিশু ও বৃদ্ধ হত্যা নিষিদ্ধ করেছে।
৯। ইসলাম অকারণে হত্যা নিষিদ্ধ করেছে।
১০। ইসলাম অপচয় সমর্থন করে না।
 
ইসলাম যেসব বিষয় করতে জোর দেয়ঃ
১। মাতাপিতার সেবা করা বাধ্যতামূলক। বৃদ্ধ বয়সে উপনীত মাতাপিতার সেবা করা জান্নাতের সহজ রাস্তা।
২। কন্যাসন্তানের লালনপালন এবং তাঁদের সুশিক্ষা দান করা, দ্বীনদার ও এলেমদার হিসেবে গোড়ে তোলা এবং সুপাত্রে দান করা জান্নাতের পথ সুগম করে।
৩। সারাদিনের কাজ, দুশ্চিন্তা, মানসিক ও শারীরিক চাপ নিরসন করার জন্য প্রতিদিন পাঁচবার কর্মবিরতি বাধ্যতামূলক। সালাত মনকে প্রশান্তি দেয়, অজু শরীরকে প্রশান্তি দেয়, সালাতে মনোযোগ দুনিয়াবী দুশ্চিন্তা থেকে দুরে রাখে।
৪। সমাজের দারিদ্র দূরীকরণে যাকাতের ভূমিকা অপরিসীম। অবশ্য যদি সঠিক নিয়ম মোতাবেক দেয়া হয়, তাহলে।
৫। বছরে অন্তত দুইটি দিন ধনী গরীব সবাই আনন্দে মাতে। গাড়ির মালিক তাঁর ড্রাইভারের সাথে কোলাকুলি করেন, বাড়ির মালিক তাঁর দারোয়ানের সাথে কোলাকুলি করেন, মায়েরা মহানন্দে পাড়া প্রতিবেশী সবাইকে ডেকে ডেকে সেমাই পোলাউ কোরমা খাওয়ান, বড়রা ছোটদের সালামী দেন, ছোটরা বড়দের সালাম করেন, কুরবানি ঈদে ইয়া বড় এক গরুর দুই তৃতীয়াংশই পয়সাওয়ালারা উপহার হিসেবে বিলি করে দেন, আরও কত কি। এগুলো থাকতেও আমাদের কি আর হ্যালইনের চকলেট কিংবা দুর্গাপূজার প্রসাদের কোন প্রয়োজন আছে?
৬। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ। কিভাবে? কোন সহীহ হাদিস আছে? না ভাই, সহীহ হাদিস লাগে না। মলমূত্র ত্যাগের পরে উত্তমরূপে ত্যাগের অঙ্গ ধৌত করাই পরিচ্ছন্নতা। সহবাসের পরে বাধ্যতামূলক গোসলই পরিচ্ছন্নতা। প্রতিদিন পাঁচবার অজু করাই পরিচ্ছন্নতা। সুন্নাহ মোতাবেক আতর ব্যবহার করলে কার গা থেকে ঘামের বদগন্ধ বেরুবে? এগুলো যদি ঈমান প্রকাশের মাধ্যম হয়, তবে “পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ” এই কথাটি মানতে সহীহ হাদিস লাগবে কেন? মুসলিমদের শুধু টিসু দিয়ে মুছে নিলেই হয় না রে ভাই, ধোয়া লাগে।
৭। মিথ্যা কথা বলা বারণ। চুরি করা বারণ। ঘুষ দেয়ানেয়া বারণ। চোগলখুরি, পরনিন্দা, পরচর্চা, গুজব রটানো, অপবাদ দেয়া, অপয়া বলা, সব বারণ।
৮। স্ত্রী সন্তানের অধিকার আগে আদায় করতে হবে। এক স্ত্রীকে খুশী করতে না পারলে দ্বিতীয় বিবাহ নিষেধ। (এখনি কয়েকজন খেপবে)
৯। অনেক টাকা থাকলে আর স্ত্রীরা সব খুশী থাকলে চারটা পর্যন্ত বিবাহ করা যাবে (একটু আগেই যারা খেপেছেন, তারা এবার আবার খুশী হন)
১০। অহংকারীদের আল্লাহ পছন্দ করেন না। তাঁর বান্দারাও মনে হয় কেউ করেন না। অতএব অহংকার না করে নরম মনের মানুষ হওয়া একজন মুসলিমএর জন্য খুব জরুরী।
 
আজ আপাতত এই পর্যন্তই।
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *