পেশা যখন আপদ!

বাংলাদেশে এমন কিছু পেশা আছে যেগুলো আসলে সেইসব মানুষদের কখনোই গ্রহন করা উচিত নয় যারা আশা করেন যে ওই পেশা থেকে তাদের জীবিকা নির্বাহ হবে। এই পেশাগুলো এলিট ক্লাস লোকদের জন্য। এলিট ক্লাস হলো এমন লোক, যাদের এমন কিছু উপার্জনপথ রয়েছে যা থেকে তার এমনি এমনি অনেক পয়সা আসে, এবং যার জীবিকা নির্বাহের জন্য কোন কাজ করার প্রয়োজন নেই। এই ধরনের কয়েকটি পেশা হলোঃ

১। ডাক্তারঃ আপনি যদি হুলুস্থুল কোন ডাক্তার না হন, তাহলে আপনার রোগীরা হবে সব মহল্লার লোক এবং এরা আপনাকে কখনই ভিজিট দেবে না। এরা বাই ডিফল্ট ধরে নেবে ডাক্তারি একটা সেবামুলক পেশা এবং এর জন্য ডাক্তারের উচিত না পয়সা নেয়া।

২। সফটওয়্যার ওবং ওয়েব ডেভেলপারঃ আপনি যেই মাপের ডেভেলপারই হন না কেন, আপনার চেনাপরিচিত সবাই আশা করবে এই কাজে আসলে আপনার কিছুই করতে হয় না, এবং এটার জন্য আপনাকে পয়সা দেবার কোন মানেই হয় না। সবাই তার ক্ষুদ্র কিংবা মাঝারী আকারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য বিলিং সফটওয়্যার, ওয়েবসাইট ইত্যাদি বানানোর জন্য আপনার কাছে আসবে। ঘন্টাখানেক আলাপ করবে, চা কফি খাবে, তারপরে আপনি যখন বলবেন যে এটা বানাতে একটা নির্দিষ্ট পরিমান টাকা আপনার লাগবে, তখন এরা আপনাকে গালিগালাজ করতে করতে সটকে পড়বে।

৩। গ্রাফিক্স ডিজাইনারঃ “সামান্য একটা জিনিষের জন্য আপনি টাকা নিবেন?” এই কথা আপনাকে শুনতে হবেই। এরা বারবার আপনার কাছে এসে ফ্রি চাইবে, কিন্তু একবারো বড় বড় কোম্পানীগুলোতে যাবে না।

৪। কনসালটেন্টঃ আপনার কাছে এক শ্রেণীর লোক বুদ্ধির জন্য সারাদিন বসে থাকবে। নিজের ব্যাবসা কিভাবে বাড়ানো যায় সেই বুদ্ধি নেবার জন্য আপনার ঘন্টার পর ঘন্টা সময় নস্ট করবে। কিন্তু যখনই আপনি কনসালটেন্সী ফি চাইবেন, তখনই আপনাকে ছোটলোক, লোভী, নিচু মানসিকতার লোক ইত্যাদি গালি গালাজ করতে করতে চলে যাবে।

এই শ্রেনীর ক্রেতারা একটা জিলিপির দোকানে গিয়ে ৫ টাকার একটা জিলিপি ফ্রি চাইবার সাহস পাবে না, কিন্তু আপনার ৫ লক্ষ টাকার সার্ভিস ফ্রি চাইতে লজ্জা পাবে না। এবং এই শ্রেনীর ক্রেতারা নিজের চার আনা দামের পন্য ফ্রি দেবে না, কিন্তু আপনার চার লক্ষ টাকার সফটওয়্যার কেন টাকা দিয়ে কিনতে হবে তার যুক্তি খুজে পাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *