জাতি জানতে চায়, আমি কেন বিয়ে শাদীর অনুষ্ঠানে যাই না

জাতি জানতে চায়, আমি কেন বিয়ে শাদীর অনুষ্ঠানে যাই না. অনেক গুলো কারণ আছে. লিপিবদ্ধ করি কারণ গুলো.

১. পর্দা রক্ষা হয় না.
২. ভালো লাগে না.
৩. মানুষজন ফালতু কথা বলে, যেমন “বাপরে বাপ, পির সাব হইসনি?” “এই ভন্ডামি কবেত্থিকা?” “পংটামি তো বহুত করলা, এখন হুজুর হইসো?” ইত্যাদি ইত্যাদি
৪. কুত্তার পেটে ঘি হজম হয় না. আমার ও বিয়ে বাড়ির পোলাও হজম হয় না.
৫. ঢাকা শহরের রাস্তা ঘাটের যা অবস্থা, সেনাকুঞ্জ, শাহীন, ট্রাস্ট, পামভিউ, রেডিসন, এইসব জায়গায় অনুষ্ঠান হলে যাওয়া অসম্ভব. যারা এইসব জায়গায় দাওয়াত দেয়, তারা আমার মত রিক্সা আরোহীদের জন্য দেয় না. আর আমার নিজের পক্ষে যাইতে ৩ ঘন্টা, আইতে ৩ ঘন্টা, এই ৬ ঘন্টা এক প্লেট বিরানির জন্য (যেইটা আবার আমার হজম হয় না) গাড়ি চালানো অসম্ভব. আমারে যদি টাকা দেয়, তাইলেও অসম্ভব.
৬. নগ্ন পৃষ্ঠ নন্দিনিদের দেখতে আমার কষ্ট হয়!
৭. হেভি মেকাপ দেখে আমার চোখ ব্যাথা করে, আর হেভি পারফিউম এর গন্ধে আমার মাথা ব্যাথা করে.
৮. আজকাল আবার শুরু হয়েছে নৃত্যগীতে ভরপুর আধুনিক সাংস্কৃতিক বিয়ে সাদির অনুষ্ঠান. এগুলা (বিশেষ করে, আনাড়ি নাচনেওয়ালীদের বিশাল দেহবল্লরীর ছন্দহীন চক ভুম ভুম) দেখে আমার গা গুলিয়ে ওঠে.
৯. ডিজে  ছাড়া তো আজকাল বৌভাত এর অনুষ্ঠান চিন্তাই করা যায় না. আর আমি ডিজে অনুষ্ঠানে? এইটাও তো চিন্তাই করা যায় না!
১০. পর্দা ব্যাপারটা একেবারেই রক্ষা হয় না.
আশা করি এটা পরার পর আপনাদের যাদের বিয়ে শাদীর অনুষ্ঠানে আমি যাইনি, তারা বুঝে নেবেন কেন আমি এইসব অনুষ্ঠানে যাই না. এই ১০ টি কারণ মুক্ত যেকোনো বয়ের অনুষ্ঠানে আমি সানন্দে যেতে আগ্রহী, ইনশাল্লাহ.
যাইহোক, এটা পরার পরে অনেকেই বলবেন, “ব্যাটা ভন্ডামি করো? নিজের বিয়াতে এইসব করো নাই?” তাদের জন্য উত্তর, “ভাই, আগে তো কত কিসুই করসি, তাই বইলা কি আজীবন করতে হবে নাকি? তুমি তো ছোটবেলায় বিছানায় পেশাব করতা, তাই বৈলা কি আজীবন বিছানায় মুতবা?”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *